চট্টগ্রাম রাজনীতি

সোনাইমুড়ি পৌরসভার নির্বাচন আগামী কাল

e--logo-new-tm20130429010212কামাল হোসেন মাসু, নোয়াখালী: শনিবার অনুষ্ঠিত হবে নোয়াখালীর সোনাইমুড়ি পৌরসভার নির্বাচন। প্রচারণা শেষ ব্যস্ত প্রার্থীরা। নির্বাচনে মেয়র পদে সাত প্রার্থীর মধ্যে দুইজন আওয়ামীলীগ সমর্থিত, তিনজন বিএনপি সমর্থিত আর দুই জন স্বতন্ত্র প্রার্থী। মাঠের লড়াইয়ে সরাসরি ভোট যুদ্ধে রয়েছেন জেলা আওয়ামীলীগ ঘোষিত সোনাইমুড়ি ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ভিপি নুরুল হক চৌধুরী এবং জেলা বিএনপি ঘোষিত বর্তমান মেয়র মোতাহের হোসেন মানিক।অপরদিকে বিগত সময়ে ২০০৬ সালের ১৩ মার্চ অনুষ্ঠিত প্রথম পৌর নির্বাচনে এবং ইউনিয়ন থাকাকালীন সময়েও সোনাইমুড়িতে নির্বাচনে ব্যপক সহিংসতার কারণে ৬ জুলাই অনুষ্ঠিতব্য নির্বাচনেও সহিংসতার আশংকা রয়েছে। মেয়র প্রার্থীরা প্রতিদ্বন্ধী প্রার্থীর কেন্দ্রকে ঝুঁকিপূর্ণ হিসাবে চিহ্নিত করায় এই আশংকা আরো তীব্র হয়েছে। তবে রামপুর, কাঠালি, শিমুলীয়া, ভানুয়াই এবং দুঃশ্বিম পাড়া কেন্দ্রকে অত্যাধিক ঝুঁকিপূর্ণ হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছে। কিন্তু প্রশাসনের পক্ষ থেকে পৌর এলাকার ৯টি কেন্দ্রকেই সমান গুরুত্বপূর্ণ হিসাবে বিবেচনা করা হচ্ছে বলে জানান।সরেজমিনে ঘুরে ভোটারদের সাথে কথা বলে জানা যায়, জেলা আওয়ামীলীগ থেকে মেয়র পদে সমর্থন ঘোষণা করা হয় ভিপি নুরুল হকের প্রতি। তাঁর পক্ষে উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মমিনুল ইসলাম বাকের ও সাধারণ সম্পাদক উপজেলা চেয়ারম্যান আ ফ ম বাবু ছাড়াও কেন্দ্রীয় যুবলীদের সহ-সম্পাদক এবং প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত সহকারী জাহাঙ্গীর আলম গণসংযোগ করেন। কিন্তু আওয়ামীলীগের অপর প্রার্থী ভিপি মাহফুজুর রহমান বাহারের পক্ষে জেলা আওয়ামীলীগের অনেক নেতা কর্মীরা প্রচারণায় অংশ নেন।এদিকে মেয়র পদে বর্তমান মেয়য় মোতাহের হোসেন মানিককে জেলা বিএনপি সমর্থন ঘোষণার পর স্থানীয় সাংসদ ব্যারিস্টার এ এম মাহবুব উদ্দিন খোকন তাঁকে নিয়ে গণসংযোগ ও প্রচারণা চালায়। বিপরীতে বিএনপির আরো দুই প্রার্থী হেলাল উদ্দিন টটুল এবং আবু তাহের চেয়ারম্যানের পক্ষেও দলের নেতাকর্মীরা রয়েছেন। পৌরসভার জামাতের আমীর সাহাব উদ্দিন জানান, জেলা পর্যায়ের সিদ্ধান্তের আলোকে সোনাইমুড়ি পৌরসভা জামায়াতের পক্ষ থেকে বিএনপি প্রার্থী মোতাহের হোসেন মানিককে সমর্থন দেওয়া হয়েছে।এদিকে পৌর এলাকার নাওতোলা, কৈশল্যের বাগ, অলোকপাড়া, ভানুয়াই, শিমুলিয়া, রামপুর, কাঠালিসহ পৌর এলাকার গ্রামগুলো ঘুরে দেখা গেছে ভোটারদের মাঝে চাপা আতংক। নির্বাচনকে ঘিরে সহিংসতার আশংকা করছেন তারা। বৃদ্ধ হাতেম আলীর মতো বরাবরই সোনাইমুড়িতে নির্বাচনে সহিংসতা হয়ে আসছে। মানুষ নির্বিঘেœ ভোট দিতে পারলেই হয়। নির্বাচনের মাত্র কয়েক ঘন্টা বাকী ভোটারদের শংকাকে উড়িয়ে দেননি মেয়র প্রার্থীরা। মেয়র প্রার্থী নুরুল হক ভিপি, হেলাল উদ্দিন টুটুল, মোতাহের হোসেন মানিক ও ভিপি মাহফুজুর রহমান বাহারের মতে- এখন পর্যন্ত নির্বাচনের সুষ্ঠু পরিবেশ রয়েছে। অবশ্যই ভোটকেন্দ্রের সুষ্ঠু পরিবেশ নিশ্চিত করার দাবি করেন তাঁরা। তবে এর সাথে কালো টাকার ছড়াছড়ি বন্ধ করা এবং ভোটরা যাতে নির্বিঘেœ ভোট কেন্দ্রে যেতে পারে তারও দাবি করেন মোতাহের হোসেন মানিক।রিটার্ণিং অফিসারের কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, নির্বাচনে মেয়র পদে ৭জন, সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৪৩ জন এবং সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে ৮জন প্রতিদ্বন্ধীতা করছেন। নির্বাচনে মোট ভোটার ১৯ হাজার ৮২০জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। এরমধ্যে ৯ হাজার ৯৫৮জন পুরুষ এবং ৯ হাজার ৮৬২জন মহিলা ভোটার রয়েছেন।রিটার্ণিং অফিসার ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) হাসিনা বেগম গতকাল হট নিউজকে বলেন, তাঁর কাছে ৯টি কেন্দ্রই সমান গুরুত্বপূর্ণ। এখন পর্যন্ত কোনো সহিংসতার আশংকা নেই। তাছাড়া নির্বাচনে টাকার প্রভাবের বিষয়টি কেই তাঁকে জানায়নি। তারপরও ভোট গ্রহণ নির্বিঘœ করার জন্য প্রতি কেন্দ্রে একজন করে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট, তিনজন ইউএনও এবং এডিসির নেতৃত্বে মোবাইল টিম, প্রতি কেন্দ্রে ১৭জন আনসার এবং ১৪জন পুলিশ দায়িত্ব পালন করবেন। এছাড়া র‌্যাব চাওয়া হয়েছে এবং প্রতিটি কেন্দ্রে পুলিশের একটি মোবাইল টিমও থাকবে।