কৃষি ঢাকা

ফরিদপুরের মধুখালীতে আখক্ষেতে ফড়িং পোকার আক্রমন

modhukhali picরেজাউল ইসলাম রিটু,ফরিদপুর: ফরিদপুর সুগার মিলস্ লিঃ এর মিল গেট কেন্দ্রের এ ও বি সাবজোন ১৫ এবং ২১ নম্বর ইউনিটের লক্ষণদিয়া ও মেছড়দিয়ার আখক্ষেতগুলোতে আকস্মিক এক ধরনের ফড়িং পোকার আক্রমন দেখা দেয় । দেখা যায় আখ ক্ষেতে ফড়িং পোকা আখের পাতায় বসে পাতার পত্রফলক বাদে সমুদয় পাতা খেয়ে ফেলছে । ফলে গাছে সলোক সংশ্লেষন প্রক্রিয়া বাাধাগ্রস্থ হয়ে খাদ্য উৎপাদন ব্যাহত হচ্ছে । এ সংবাদ পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই চিনিকলের ব্যাবস্থাপনা পরিচালক কমল কান্তি সরকার,জিএম (কৃষি) সূর্য্য কান্ত বেপারী, ডিজিএম (সম্প্রঃ) রফিকুল ইসলাম ভূঁইয়া, ডিজিএম(এসআই এন্ড এ্যাগ্রোঃ) সুরঞ্জন বাড়ৈ, রওশনারা আরজু , হাসিনা ফেরদৌসী, সৈয়দ এটিএম মাসুদ , নজরুল ইসলামসহ সকল কর্মকর্তা মাঠ পরির্দশন করেন এবং পোকা দমনে উদ্যোগী হন। মিল কর্তৃপক্ষ তৎক্ষনিক ভাবে পোকা দমনে প্রতিকেজি ২শত টাকা প্রদানের ঘোষনা দেন ।

আখ চাষী কামরুজ্জামান দাউদ,লাল মোহাম্মাদ ,লিটন জোয়াদ্দার বলেন আখ চাষে দীর্ঘ ৩৬/৩৭ বৎসরে এ ধরনের পোকার আক্রমণ আমরা দেখিনি । পোকার আক্রমণের গুরুত্ব বিবেচনা করে ফরিদপুর চিনিকলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কমল কান্তি সরকার তৎক্ষণিক ভাবে পরিচালক (সিডিআর) বাংলাদেশ চিনি ও খাদ্য শিল্প কর্পোরেশন ,সদর দপ্তর ,ঢাকা ,মহাপরিচালক ইক্ষু গবেষণা ইনষ্টিটিউট,ঈশ্বরদী,পাবনা,উপপরিচালক কৃষি সম্প্রশারণ অধিদপ্তর,ফরিদপুর,পরিচালক উদ্ভিদ সংরক্ষণ উইং,কৃষিসম্প্রসারণ অধিদপ্তর ,খামার বাড়ী ,ঢাকা,মধুখালী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তাদের মতামত ও পরামর্শ চেয়ে চিঠি দেন। বাংলাদেশ আখ গবেষনা প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ ইক্ষু গবেষনা ইনষ্টিটিউট,ঈশ্বরদী,পাবনায় পোকা ও আক্রান্ত গাছের নমুনা প্রেরন করেন এবং উক্ত পোকা দমন পদ্ধতি বিষয়ে মতামত গ্রহন করেন বলে জানা যায়। আখ ক্ষেতে পোকার আক্রমণ হওয়ার পরই পরিচালক (সিডিআর) আজিজুর রহমান ,ডিজিএম (সিপিসিআর) কুমুদ রঞ্জন সরকার, জি এম (পিডিএম) সুরুজ্জামান দেওয়ান, ডিজিএম (সিপিসিআর))মোঃ আমজাদ হোসেন ফকির, বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ,কীটত্ত্ব বিভাগ মোঃ নুরে আলম সিদ্দিকী, ইক্ষু গবেষনা ইনষ্টিটিউট,ঈশ্বরদী,পাবনার০৭ এসএমও ডঃ মতিউর রহমান,উপপরিচালক কৃষি সম্প্রশারণ অধিদপ্তর ফরিদপুর এর ভাস্কর চক্রবর্তী,পিপিএস চন্ডিদাস কুন্ডু,প্রমুখ কর্মকর্তাবৃন্দ সরাসরি আক্রান্ত জমি পরিদর্শন করেন এবং কীটনাশক ঔষধ ¯েপ্রসহ মশারী দ্বারা পোকা নিধনের পরামর্শ দেন। হাতে নাতে পোকা দমনেই উত্তম পন্থা বলে উলেখিত বিশেষজ্ঞমহল মনে করেন। ফরিদপুর চিনিকল ব্যবস্থাপনার পক্ষ থেকে চাষীদের পোকাদমনে উদ্যোগী ভুমিকা নেওয়া এবং উদ্ধুদ্ধ কারনের জন্য ইতোমধ্যে অত্র এলাকায় মাইকিং ,লিফলেট বিতরণ,চাষীদের সাথে সরাসরি যোগাযোগ,মাঠ পরিদর্শন উঠান বৈঠক ,চাষী সমাবেশ বিভিন্ন কর্মকান্ড অব্যাহত রয়েছে। পোকাআক্রান্ত এলাকার মাঠকর্মি মনির হোসেন ও শরিফুল ইসলাম সকাল/বিকাল পোকা দমন কাজ তদারকি করছেন । মিল কর্তৃপক্ষ ক্ষতিগ্রস্থ আখ ক্ষেতে অতিরিক্ত সার ও কার্বোফুরান -৫ জি প্রয়োগের বিষয়ে বিবেচনা করছেন বলে জানিয়েছেন । মিল কর্তৃপক্ষ ও আখ চাষীগন এখনও পোকা দমন চেষ্টা অব্যাহত রেখেছেন ।