কৃষি ঢাকা

মুন্সীগঞ্জে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ ও বৃক্ষ মেলার উদ্বোধন উপলক্ষে বর্ণাঢ্য র‌্যালী ও আলোচনা সভা

vwvy¦Avসেতু ইসলাম,মুন্সীগ: মাছে মাছে ভরবো দেশ’ গড়বো সোনার বাংলাদেশ এই শ্লোগান কে সামনে রেখে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ উপলক্ষে মুন্সীগঞ্জের টঙ্গিবাড়ী উপজেলায় বর্ণ্যঢ র‌্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলা পরিষদের কার্যালয় প্রঙ্গন থেকে একটি বর্ণ্যঢ র‌্যালী বের হয় । র‌্যালীটি প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন করে উপজেলা অডিটরিয়ামে এসে শেষ হয়। র‌্যালী শেষে বিভিন্ন পুকুরে মৎস্য পোনা অবমুক্ত করেন ও উপজেলা কৃষি বিভাগ এর আয়োজিত বৃক্ষমেলার উদ্বোধন করেন জাতীয় সংসদের হুইপ সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি এমপি। পরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সভাপতিত্বে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয় সভায় বক্তব্য রাখেন, জেলা কৃষি সম্পসারন অধিদপ্তর এর পরিচালক কৃষিবিদ হাবিবুর রহামন, উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি জগলুল হালদার ভূতু।কক্সবাজারে বিজিবি-নাসাকা পতাকা বৈঠক অনুষ্ঠিত

 

প্রতিনিধি

মিয়ানমারেরর নাসাকা বাহিনী ও বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) এর সাথে সেক্টর কমান্ডার পর্যায়ের পতাকা বৈঠক বৃহষ্পতিবার (৪ জুলাই) কক্সবাজারে অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহষ্পতিবার দুপুর ১২ টায় শুরু হওয়া কক্সবাজার সমুদ্রসৈকত সংলগ্ন লাবনী পয়েন্টের বিজিবি রেষ্টহাউসে ৩ ঘন্টা ব্যাপী দু’দেশের মধ্যে অনুষ্ঠিত পতাকা বৈঠক বিকেল ৩ টায় শেষ হয়।

কক্সবাজার সেক্টর ঘোষণার পর এটাই প্রথম সেক্টর পর্যায়ের পতাকা বৈঠক। বৈঠকে বাংলাদেশের বিজিবি’র পক্ষে নের্তৃত্ব দেন কক্সবাজারের সেক্টর কমান্ডার কর্ণেল মো. নজরুল ইসলাম ও বিভিন্ন ব্যাটালিয়নের অধিনায়কসহ ১৪ সদস্যের প্রতিনিধি দল। অপরদিকে মিয়ানমারের ১৮ সদস্যের প্রতিনিধি দলের নের্তৃত্ব দেন নাসাকার সেক্টর পরিচালক জেনারেল ইউ অং নেইং। উভয় দেশের মধ্যে দীর্ঘ ৩ ঘন্টার এ বৈঠকে সীমান্ত পরিস্থিতি, মিয়ানমার কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সীমান্ত এলাকায় বিস্ফোরক দ্রব্য বসানো, অবৈধ অনুপ্রবেশ, চোরাচালান বন্ধ, ইয়াবা ও বিভিন্ন প্রকার বাংলাদেশী জেলেদের হত্যা এবং দু-দেশের মাদক চোরাচালান বন্ধ, ট্রানজিট যাত্রী কর্তৃক অবৈধ মালামাল বহনসহ বিভিন্ন বিষয়ে ফলপ্রসু আলোচনা হয়েছে বলে জানান সেক্টর কমান্ডার। তিনি আরো বলেন, এখন থেকে সীমান্তবর্তী যে কোন সমস্যায় দু,দেশ একসঙ্গে কাজ করার অঙ্গিকার করেন নাসাকার পরিচালক।

 

পতাকা বৈঠক শেষে প্রেস ব্রিফিং কালে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে কক্সবাজার সেক্টর কমান্ডার কর্ণেল মো: নজরুল ইসলাম বলেন, সীমান্তে পুতে রাখা স্থলমাইন বিষয়ে নাসাকার সাথে বিশদ আলোচনা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, তবে মাইনের বিষয়টি সঠিক নয় বলে দাবী করেছেন নাসাকার পরিচালক।

মিয়ানমারের ১৮ সদস্যের নাসাকার প্রতিনিধি দলের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন, ডেপুটি ডিরেক্টর- ইউ থাই হান, ইউ সেইন থার ক্য, ইউ সওয়ি মিন হ্লাইং, এসিস্ট্যান্ট ডিরেক্টর ইউ ওয়াই পিয়োঁ থোঁ, ইউ বা উইন, ইউ থেইন থান, স্টাফ অফিসার- ইউ মং মং মিয়াথ, এসিস্ট্যান্ট ইমিগ্রেশন অফিসার-ইউ থিন হান অং, ইমিগ্রেশন এসিস্ট্যান্ট ইউ থান নাইং ও, ইউ জিন মিন, ইউ থান সউয়ি কি, ইউ মং কি, ইন্টারপ্রিটার-ইউ থার জান ও, ইউ অং ক্য উইনসহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।

অন্যদিকে পতাকা বৈঠকে বিজিবির পক্ষ থেকে আরো উপস্থিত ছিলেন, বিজিবি চট্টগ্রাম দক্ষিণ-পূর্ব জোনের এন: পয়েন্ট অফিসার লে: কর্ণেল তৌহিদুল ইসলাম, নাইক্ষ্যংছড়ি বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক-লে: কর্ণেল মো; মেহেদী হাসান, চট্টগ্রাম বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক-লে: কর্ণেল এস এম সালাউদ্দিন, টেকনাফ বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক-লে: কর্ণেল মো: জাহিদ হাসান, রামু বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক-লে: কর্ণেল তানভির আহমেদ জায়গিরদার, কক্সবাজার সদর বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের অধিনায়ক-মো: খালিদ হাসান, উপ-অধিনায়ক-মেজর মো: মেফতাহ উল ইসলাম, কক্সবাজার সেক্টরের স্টাফ অফিসার-মেজর মো: জিয়াউর রহমান, মেজর আরিফ মহিউদ্দিন আহমেদ, অফিস স্টাফ-মো: দেলোয়ার হোসাইন, মো: শামীম আহমেদ, তরুন কান্তি খিশা, মো: নুর হোসাইন ভুঁইয়া, মো: কবির হোসাইন, মীর মো: কবিকক্সবাজারর প্রমুখ।