ঢাকা প্রধান খবর

ঈদের আগেই সড়ক সংস্কার -যোগাযোগমন্ত্রী

Obaidনিজস্ব প্রতিবেদক ,হটনিউজ২৪বিডি.কম ,ঢাকা: বর্ষা মৌসুম, আসন্ন রমজান ও ঈদকে সামনে রেখে বুধবার সচিবালয়ে সড়ক ও মহাসড়কের সংস্কার ও নির্মাণ কাজের অগ্রগতি পর্যালোচনা সংক্রান্ত একটি বৈঠক করেন মন্ত্রী।

সেই বৈঠকে জাতীয় স্বার্থে ও জনদুর্ভোগ লাঘবে ভালো মানের কাজ করার জন্য সড়ক বিভাগের প্রকৌশলীদের আহবান জানিয়েছেন যোগাযোগমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।
বৈঠকে যোগাযোগমন্ত্রী সড়ক বিভাগের প্রকৌশলীদের উদ্দেশ্যে বলেন,‘আমি কাকে বিশ্বাস করবো? প্রকৌশলীরা সত্য তথ্য প্রদান করেন না। তারা যে রিপোর্ট দেন বাস্তবে গিয়ে দেখা যায় অন্য রকম। দরপত্র অনুমোদনের পর কার্যাদেশ দিতে এত দেরি হয় কেন? তারা এমনভাবে কাজ করেন একটু বৃষ্টি হলেই নষ্ট হয়ে যায়।’
মন্ত্রী বলেন,‘আমি সবাইকে বলছি না। সবাই নিম্নমানের কাজ করেন না। সবাই যদি নিম্নমানের কাজ করতো তাহলে পরিস্থিতি আগের চেয়ে উন্নতি হতো না। অনেকে ভালো কাজ করলেও অনেকেই আবার করেন না।’
এ প্রসঙ্গে তিনি আরও বলেন,‘আমি আসলে সত্যটা প্রকাশ করলাম। যেটা হয়তো অনেকে করে না। আমি করলাম, কারণ আমি কারো কাছ থেকে এক পয়সা কমিশন খাই না।’
‘দুর্নীতিবাজ প্রকৌশলীদের বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে কি না- জানতে চাইলে ওবায়দুল কাদের বলেন,‘এ ব্যাপারে ব্যবস্থা গ্রহণের দায়িত্ব সংশ্লিষ্ট বিভাগ বা প্রতিষ্ঠানের। কিন্তু দেখা যায়, একজনকে সরিয়ে আরেকজনকে দায়িত্ব দেয়া হচ্ছে। যেহেতু জনবলের অভাব রয়েছে, তাই ঘুরেফিরে তাদের উপরই নির্ভর করতে হচ্ছে। এটা কোনো দীর্ঘস্থায়ী সমাধান নয়।’
তিনি বলেন,‘বর্তমানে সড়ক-মহাসড়কের যে অবস্থা সেটা অতীতের যে কোনো সময়ের তুলনায় ভালো। ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক চারলেনে উন্নীত করার কাজ দশটি প্যাকেজের মধ্যে ছয়টি প্যাকেজে স্পট ও কার্পেটিংয়ের কাজ চলছে। তবে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে বিকল্প সড়ক ও বিদ্যমান সড়কগুলো যাতে সচল থাকে সেদিকে।’
এছাড়া গুলিস্তান-যাত্রাবাড়ী নির্মাণাধীন ফ্লাইওভারের কারণে দীর্ঘ যানজটের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন,‘এটা আসলে সিটি করপোরেশনের প্রকল্প, যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের নয়। কিন্তু সবাই মনে করে এটা আমাদের। আর যেহেতু যানজটের বিষয় আছে, তাই এটা আমার জন্য মন্ত্রী হিসেবে বিব্রতকর। এ ব্যাপারে সিটি করপোরেশনকে একাধিকবার বলা হলেও তাদের নিদ্রা ভাঙ্গছে না।’
অন্য প্রসঙ্গের মধ্যে মন্ত্রী জানান, বিআরটিসি বহরে ৮৭টি নতুন শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত বাস আনা হয়েছে। খুব শিগগিরিই এগুলো চালু করা হবে। এতে করে আসন্ন রমজান ও ঈদে যাত্রীদের দুর্ভোগ কিছুটা কমবে।