কৃষি চট্টগ্রাম

১৮৭৫জন জেলেকে পরিচয় পত্র দেয়ার ঘোষণা

mash কামাল হোসেন মাসুদ,নোয়াখালী:জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ উদ্যাপন উপলক্ষ্যে জেলা প্রশাসন ও জেলা মৎস্য অধিদপ্তরের আয়োজনে ‘মাছে মাছে ভরবো দেশ, গড়বো সোনার বাংলাদেশ’ স্লোগানের মধ্য দিয়ে নোয়াখালীতে বর্ণাঢ্য র‌্যালী, আলোচনা ও জেলা প্রশাসন চত্বর দীঘিতে পোনা মাছ অবমুক্ত করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক মো. সিরাজুল ইসলাম। এ সময় টর্নেডোতে ক্ষতিগ্রস্থ মৃত জেলে আবুল কাশেমের পরিবারকে ৩০ হাজার টাকা প্রদান করা হয়। এছাড়া শ্রেষ্ঠ মৎস্য হ্যাচারী তাই থাই বাংলা সাইন্টিফিক হ্যাচারী, শ্রেষ্ঠ নার্সারী আলবারাকা মৎস্য খামার, শ্রেষ্ঠ মৎস্য চাষী আল্লারদান মৎস্য খামার ও রাবেয়া এগ্রো ক´প্লেস, উদ্যোক্তাসহ ৭ জনের মাঝে ক্রেস্ট প্রদান করা হয়।

সকাল সাড়ে ৯টায় জেলা বিআরডিবি ভবনের সামনে থেকে একটি সুসজ্জিত বর্ণাঢ্য র‌্যালী জেলা শহরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে বিআরডিবি’র মিলনায়তনে আলোচনা সভায় মিলিত হয়। জেলা মৎস্য কর্মকর্তা বিলকিস তাহমিনার সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, মৎস্য অধিদপ্তর চট্টগ্রাম বিভাগের উপ-পরিচালক এ.কে.এম ছিদ্দিক, বিআরডি’র উপ-পরিচালক খলিলুর রহমান, জেলা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সারওয়ার আলম, জেলা পিপি এডভোকেট এ.টি.এম মহিব উল্যাহ্, মুক্তিযোদ্ধা মিয়া মোহাম্মদ শাহ্জাহান প্রমুখ। অনুষ্ঠান সঞ্চালন করেন মাধন চন্দ্র সরকার।

আলোচনা সভায় জেলা মৎস্য কর্মকর্তা বলেন, জেলার হাতিয়া, সদর, সুবর্ণচর, বেগমগঞ্জ, সেনবাগ উপজেলায় ১৮৭৫জন জেলেকে চিহ্নিত করা হয়েছে। এছাড়া কোম্পানীগঞ্জ জেলে বাচাই কার্যক্রম চলছে। ১৮৭৫জন ও কোম্পানীগঞ্জ বাচাই শেষে জেলেদের মাঝে সেনাবাহিনির মাধ্যমে জেলে পরিচয়পত্র প্রদান করা হবে। এছাড়া, ২০১০ সাল থেকে এ পর্যন্ত ১৬.৪১৭ লক্ষ মিটার অবৈধ জাল আটক করা হয়েছে। ইতোমধ্যে বিভিন্ন সময় ঘূর্ণিঝড়ে মৃত ৮ জেলে পরিবারকে ২ লাখ ৪০ হাজার টাকা অনুধান প্রদান করা হয়েছে বলেও তিনি জানান।