জাতীয় ঢাকা

পদ্মার তীব্র ভাঙঁনে বসতভিটে ও ফসলী জমি বিলীন

Faridpur picJuly.01 (2)রেজাউল ইসলাম রিটু,ফরিদপুর: ফরিদপুরের চরভদ্রাসন উপজেলা সদরের এমপি ডাঙ্গী গ্রামসহ আশপাশের বিচ্ছন্ন পয়েন্টে গত রবিবার থেকে পদ্মা নদীর তীব্র ভাঙঁন দেখা দিয়েছে। এতে প্রায় ১০ একর ফসলী জমিসহ ২টি বসতভিটে পদ্মার গর্ভে বিলীন হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। উপজেলা সদরের মাত্র দেড় কি.মি. উত্তর পশ্চিম দুরত্বে বেড়িবাঁধ সংলগ্ন পদ্মার তীর ঘেষে তীব্র ভাঙঁন দেখা দেওয়ায় উপজেলা পরিষদও হুমকীর মূখে রয়েছে। রবিবার বিকেলে ফরিদপুর পাউবো’র নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুল মতিন, ইউএনও দিল আফরোজা বেগম ও উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ আবুল হোসেন ভাঙঁন কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেছেন।

ভাঁঙন এলাকা পরিদর্শনকালে ফরিদপুর পাউবোর নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুল মতিন বলেন, “আমদের কোনো ফান্ড নাই, জরুরী ভিত্তিতে রাজনৈতিকভাবে প্রকল্প পাশ হলে আমরা কাজ করতে পারি”। উপজেলা চেয়ারম্যান জানান, “ উপজেলার এমপি ডাঙ্গী গ্রামের বেড়িবাঁধ পদ্মার পয়েন্টে ভাঙঁন রোধ করা না গেলে পদ্মায় চরভদ্রাসন উপজেলা পরিষদের উপর খুব সহজেই আঘাত হানবে। এতে উপজেলা পরিষদের অস্বিত্ত টিকিয়ে রাখা দুঃসাধ্য হয়ে দাড়াবে”। সোমবার উপজেলা আ’লীগের সাধারন সম্পাদক আলহাজ্ব কাউছার হোসেন বলেন, “ জরুরী ভাবে উক্ত এলাকায় পদ্মার তীর সংরক্ষন বাঁধ নির্মানের জন্য আ’লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী জাফর উলাহ সহ ফরিদপুর পাউবো জোর চেষ্টা চারিয়ে যাচ্ছেন। কিন্ত কেন্দ্র থেকে প্রকল্পগুলো পাশ না হওয়ায় ভাঁন রক্ষা কাজ করা সম্ভব হচ্ছে না ”।

 

এলাকাবাসী জানায়, উপজেলার এমপি ডাঙ্গী গ্রাম ছাড়াও সদর ইউনিয়নের বালিয়া ডাঙ্গী, ফাজিলখার ডাঙ্গী, হাজীডাঙ্গী গাজীরটেক ইউনিয়নের জয়দেব সরকারের ডাঙ্গী, চরহোসেনপুর, নতুনডাঙ্গী গ্রামের পদ্মার ভাঁঙন দেখা দিয়েছে। গত দু’দিনে প্রায় ১০ একর ফসলী জমি, শতাধিক মেহগনী গাছ পদ্মার গর্ভে চলে গেছে। এছাড়া এমপি ডাঙ্গী গ্রামের সেক ইলাজদ্দিন ও সেক ছালামের ২টি বসতভিটে পদ্মায় বিলীন হয়ে গেছে।