জাতীয় রাজশাহী

নাটোরে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মামলার প্রতিবাদে মহিলাদের ঝাড়– মিছিল

NATORE-01.07.13-1মোঃ মাহফুজ আলম মুনী, নাটোর: নাটোরের বড়াইগ্রাম উপজেলার জোনাইল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা রাশেদুল আলম রাসেলের নামে মিথ্যা মামলা দায়েরের প্রতিবাদে সোমবার স্থানীয় সহ¯্রাধিক মহিলা ঝাড়ু নিয়ে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছেন। উপজেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি লিয়াকত আলী আলম তার ভাগিনা জোনাইল ইউনিয়নের চৌমুহন গ্রামের সাইদুল ইসলাম পারভেজকে দিয়ে ষড়যন্ত্রমূলক ভাবে ইউপি চেয়ারম্যান রাসেলের নামে ৬০ লাখ টাকার চেক ডিজ অনার মামলা করিয়েছেন। বাদী পারভেজ নির্বাচন পরিচালনার জন্য এ টাকা চেয়ারম্যান রাসেলকে ধার দিরে ওই টাকার বিপরীতে চেয়ারম্যান তাকে জোনাইল শাখা জনতা ব্যাংকের অনুকুলে একটি চেক (নম্বর-৬৩৬৯৫১৬, হিসাব নং ৫১৭) প্রদান করেন। ওই একাউন্টে টাকা না থাকার অভিযোগে সম্প্রতি তিনি চেয়ারম্যান রাসেলের নামে ৬০ লাখ টাকার চেক ডিজ অনারের মামলা করেন। এ মামলাকে মিথ্যা ও ষড়যন্ত্রমূলক আখ্যা দিয়ে তা দ্রুত প্রত্যাহারের দাবীতে সোমবার এলাকার মহিলারা জোনাইল বাজারে বিক্ষোভ মিছিল করেন। পরে জোনাইল মহিলা কলেজ মাঠে আয়োজিত প্রতিবাদ সমাবেশে ইউনিয়ন চেয়ারম্যান রাশেদুল আলম রাসেল, ইউপি সদস্য শওকত আলম, শামসুল ইসলাম, জমশেদ আলী, মহিলা মেম্বার জহুরা বেগম ও ফিরোজা বেগম বক্তব্য রাখেন। এ সময় বক্তারা মামলার জন্য উপজেলা বিএনপির সভাপতি লিয়াকত আলী আলমকে দায়ী করেন এবং অবিলম্বে মামলা প্রত্যাহারের দাবী জানান। মামলার বাদী সাইদুল ইসলাম পারভেজ বলেন, আমি তার কাছে কিছু টাকা পাবো। সে টাকা আদায়ের জন্যই মামলা করেছি। উপজেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি লিয়াকত আলী আলম তার বিরুদ্ধে মিছিল করা দুঃখজনক দাবী করে বলেন, এ মামলার সাথে আমার কোন সম্পর্ক নেই অথচ আমার বিরুদ্ধে অহেতুক লোকজন দিয়ে মিছিল করানো হয়েছে। এ ব্যাপারে জোনাইল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রাশেদুল আলম রাসেল বলেন, সাইদুল ইসলাম পারভেজ আমার কোন আতœীয় বা ঘনিষ্ঠজন নন যে তিনি আমাকে নির্বাচনের জন ৬০ লাখ টাকা ধার দিবেন আর তাছাড়া নির্বাচনে অতটাকা খরচের প্রশ্নই ওঠেনা তাই বিষয়টি সম্পুর্ণই মিথ্যা। আমার ব্যক্তিগত অফিস থেকে দেড় বছর আগে হারিয়ে যাওয়া একটি চেক বইয়ের পাতা ব্যবহার করে আমার নামে এই সাজানো অভিযোগ এনে আমাকে হেয় করা হচ্ছে। আমি এ চেক হারানোর বিষয়ে তখনই থানায় জিডি করেছি।